ঢাকা, সোমবার   ২২ জুলাই ২০২৪ ||  শ্রাবণ ৭ ১৪৩১

সড়কের কাজে কোন ছাড় দেওয়া হবে না: পরিবেশমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:০০, ২৪ মে ২০২১  

বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন

বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন

মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী টু বটুলী সড়কের কাজের মানের ব্যাপারে ঠিকাদারকে কোনরূপ ছাড় দেওয়া হবে না। এই সড়কের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে আমি ইতিমধ্যেই অবহিত হয়েছি। রাস্তাটি বর্তমানে চলাচলের অনুপযোগী থাকায় জনসাধারণের চলাচলে কষ্ট হচ্ছে। ইতিমধ্যে দায়িত্বপ্রাপ্ত সকল কর্মকর্তাদেরকে যথাযথ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যাতে রাস্তাটি জনসাধারণের চলাচলের উপযোগী করে দেওয়া হয়। অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে কাজ শুরু করে শেষ করতে হবে এবং কাজের গুণগত মান অবশ্য ঠিক রাখতে হবে। জুড়ী টু বটুলী সড়কের কাজের মান ও সড়কটি বর্তমানে চলাচলের অনুপযোগী হওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে আলোচনার সৃষ্টি হয়। এর প্রেক্ষিতে এক ভিডিও বার্তায় এসব নির্দেশনা দেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন,এমপি।

পরিবেশ মন্ত্রীর নির্দেশনার পর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পুরোদমে কাজ শুরু করা হয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় সড়কের কাজ না হওয়া অংশে শ্রমিকরা কাজ করছেন। কাজ পুরোদমে কাজ শুরু হওয়ায় এলাকার জনসাধারণ সন্তুষ্টি প্রকাশের সাথে সাথে পরিবেশমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

জুড়ীর ফুলতলা-বটুলি সড়কের মজবুতকরণ ও বর্ধিতকরণ কাজ নিয়ে গত কয়েক দিন ধরে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে সোস্যাল মিডিয়ায় চলছে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা। অথচ এখনও ওই রাস্তার কাজের অনুমোদনই মিলেনি বলে জানান ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

মুল প্রকল্পের ২২ কিলোমিটার রাস্তার কাজ শেষ হচ্ছে না নির্দিষ্ট সময়ে। করোনা মহামারীর জন্য শতভাগ কাজ সম্পন্ন করতে না পারার দাবী জানিয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় চেয়েছে। তবে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের দাবী নানা প্রতিকুলতার মধ্যেও প্রকল্পের ৫৫ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এদিকে প্রকল্পের শেষ অংশের ৪ কিলোমিটার রাস্তার বেহাল অবস্থার জন্য দূর্ভোগ পোয়াচ্ছেন এলাকাবাসী। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বলছে এ অংশের বর্ধিতকরণ কাজের অনুমোদন না পাওয়ায় তারা কাজ করছেন না। সওজের অনুমোদনহীন অংশের কাজ নিয়ে গত কয়েক দিন ধরে বিভিন্ন মহলের সোস্যাল মিডিয়ায় অপপ্রচারকে অনভিপ্রেত ও দুঃখজনক বলেছে মৌলভীবাজার সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

জানা গেছে, জুড়ী উপজেলা সদর থেকে ফুলতলা-বটুলি শুল্ক স্টেশন পর্যন্ত ভাঙাচোরা প্রায় ২২ কিলোমিটার সড়কটি ৭৮ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রশস্থ ও মজুবতকরণের কাজ পায় ওয়াহিদ কনস্ট্রাকশন নামক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। দুই বছর মেয়াদে কাজ সম্পন্নের জন্য ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারীতে ওয়ার্ক অর্ডার পেয়ে কাজ শুরু করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি। পরে সড়কের ১০ কিলোমিটার জায়গার কাজের দায়িত্ব প্রদান করে স্থানীয় একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে। গত কয়েক দিন ধরে সওজের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমোদনহীন ৪ কিলোমিটার রাস্তার বেহাল অবস্থার জন্য স্থানীয় ওই ঠিকাদারকে দায়ী করে তার বিরুদ্ধে সোস্যাল মিডিয়ায় একটি মহল অপপ্রচার চালাচ্ছে।

এব্যাপারে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ওয়াহিদ কন্সট্রাকশন লিমিটেডের প্রতিনিধি মো. আসাদুজ্জামান বলেন, পরিবেশমন্ত্রী নির্দেশনার পর আমরা পুরোদমে কাজ শুরু করেছি এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করবো।
 
ফুলতলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ তাজুল ইসলাম বলেন, মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশে কাজ শুরু হয়েছে। আমরা চাই কাজ সম্পূর্ণ শেষ হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত কাজ চলমান থাকুক।

স্থানীয় ফুলতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ আহমদ বলেন, জুড়ী টু বটুলী সড়কের সমস্যাটি দীর্ঘদিনের। মন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশে কাজ পুরোদমে শুরু হওয়ায় মন্ত্রীমহোদয়কে ধন্যবাদ জানাই।

জুড়ী-ফুলতলা-বটুলি সড়কের কাজ নিয়ে মুঠো ফোনে মৌলভীবাজার সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ জিয়া উদ্দিন বলেন, মন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশনা আমরা পেয়েছি।আজ থেকে পুরোদমে কাজ শুরু হয়েছে।

আরও পড়ুন
সারাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
সর্বশেষ
জনপ্রিয়