ঢাকা, বুধবার   ২৯ জুন ২০২২ ||  আষাঢ় ১৬ ১৪২৯

উম্মতে মুহাম্মদীর বিশেষ বৈশিষ্ট্যাবলি

ইসলাম ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৩৮, ২৩ মে ২০২২  

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বিশ্বমানবতার ছন্য রহমত স্বরূপ পৃথিবীতে আগমন করেন। মানুষের কল্যাণে পথ প্রদর্শন করতে আল্লাহ তায়ালা দুনিয়াতে প্রেরণ করেন এ মহামানবকে। গোটা জিন্দেগি তিনি নানা প্রতিকূলতার সম্মুখীন হওয়া সত্ত্বেও আল্লাহর একত্ববাদ প্রচার করে যান। তার জীবনে বহু ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। তিনি আল্লাহর জমিনে আল্লাহর বিধান অনুযায়ী রাষ্ট্র পরিচালনা করেছেন। মদিনায় মদিনা সনদ প্রণয়নের মাধ্যমে গোটা বিশ্বে সর্বপ্রথম লিখিত সংবিধান প্রণেতা হিসেবে হিসাবে চির স্মরণীয় হয়ে আছেন। নবী মুহাম্মদ (সা.)-এর জীবনী প্রত্যেক মুসলমানের জানা দরকার।

বিশিষ্ট সাহাবি জাবির ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আমাকে পাঁচটি বস্তু দেওয়া হয়েছে যা আমার পূর্বে কাউকে দেওয়া হয়নি। শত্রুর মনে ভীতি সঞ্চার করে আমাকে সাহায্য করা হয়েছে, যা এক মাসের রাস্তার সীমা পর্যন্ত প্রযোজ্য। জমিনকে আমার জন্য মসজিদ তথা নামাজ আদায়ের যোগ্য ও পবিত্রতা অর্জনের যোগ্য করে দেওয়া হয়েছে। আমার উম্মাতের যে কোনো ব্যক্তি যেকোনো স্থানে নামাজের সময় হলেই নামাজ আদায় করতে পারবে। আর আমার জন্য গনিমত তথা যুদ্ধলব্ধ সম্পদ হালাল করা হয়েছে, যা আমার পূর্বে কারও জন্যই হালাল ছিলো না। আমাকে (কিয়ামত দিবসে) শাফায়াত তথা সুপারিশ করার ক্ষমতা প্রদান করা হয়েছে। প্রত্যেক নবীকে বিশেষভাবে তার সম্প্রদায়ের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে আর আমি সব মানুষের কাছে প্রেরিত হয়েছি।’ (সহিহ বোখারি: ৩৩৫)

হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে কিয়ামত দিবসে শাফায়াত বা সুপারিশ করার অনুমতি দেওয়া হবে এবং তার সুপারিশ গ্রহণ করার ব্যাপারে আল্লাহতায়ালা অঙ্গীকার করেছেন। হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, নবী করিম (সা.)-কে বলা হবে, তুমি সুপারিশ করো, তোমার সুপারিশ গ্রহণ করা হবে। আলোচ্য হাদিসে বর্ণিত এই সুপারিশ দ্বারা কোন সুপারিশকে বুঝানো হয়েছে তা নিয়ে ইসলামি বিশেষজ্ঞগণ বিভিন্ন উক্তির অবতারণা করেছেন। কেউ কেউ বলেছেন, এই সুপারিশ দ্বারা কিয়ামত দিবসের ভয়াবহতা থেকে রক্ষা পাওয়ার সুপারিশকে বুঝানো হয়েছে। কারও মতে এমন সুপারিশকে বুঝানো হয়েছে, যা আল্লাহতায়ালা কখনও প্রত্যাখ্যান করবেন না।

কোনো কোনো আলেমের মতে, এই সুপারিশ দ্বারা যার অন্তরে বিন্দু পরিমাণ ঈমান রয়েছে তাকে জাহান্নাম থেকে বের করে আনার সুপারিশকে বুঝানো হয়েছে। কেউ কেউ বলেছেন, বেহেশতের মধ্যে স্তর উন্নয়ন বা মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য যে সুপারিশ করা হবে তাকে বুঝানো হয়েছে। কারও মতে, যাদের জন্য জাহান্নাম অবধারিত হয়ে গেছে তাদেরকে তা থেকে রক্ষা করার সুপারিশকে বুঝানো হয়েছে। কেউ কেউ বলেছেন, বিনা হিসেবে বিশেষ কোনো দলকে জান্নাতে প্রবেশ করানোর জন্য যে সুপারিশ করা হবে তাকে বুঝানো হয়েছে। (উমদাতুল কারি: ৪/১০)

সকল নবীকে তাদের স্ব স্ব সম্প্রদায়ের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে আর আমাদের নবী মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (সা.)-কে সাদা, কালো, আরব, অনারব নির্বিশেষ সব মানুষের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, ‘আর আমি আপনাকে সমগ্র মানবজাতির নিকট সুসংবাদদানকারী ও ভীতি প্রদর্শনকারী হিসেবে প্রেরণ করেছি। কিন্তু অধিকাংশ মানুষই এ বিষয়ে জ্ঞান রাখে না।’ (সূরা সাবা: ২৮)

যেভাবে মহানবী (সা.) সর্বশেষ নবী, একইভাবে মহানবী (সা.)-এর উম্মত সর্বশেষ উম্মত। কিন্তু সব উম্মতের শেষে এসেও এ উম্মতের রয়েছে বিশেষ বৈশিষ্ট্য। এখানে উম্মতে মুহাম্মদীর দশটি বৈশিষ্ট্য আলোচনা করা হলো—

এক. শ্রেষ্ঠত্ব : উম্মতে মুহাম্মদীকে এমন কিছু সম্মাননা আল্লাহ দিয়েছেন, যা অন্য কোনো উম্মতকে দেননি। আল্লাহ তাআলা এই উম্মতকে শ্রেষ্ঠ উম্মত ঘোষণা দিয়েছেন। পৃথিবীর ইতিহাসে যত জাতির আবির্ভাব হয়েছে, তন্মধ্যে উম্মতে মুহাম্মদীই শ্রেষ্ঠত্বের অধিকারী। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তোমরাই শ্রেষ্ঠ উম্মত। তোমাদের আবির্ভাব হয়েছে মানবজাতির জন্য।’ (সুরা আলে ইমরান, আয়াত : ১১০)

দুই. যুদ্ধলব্ধ সম্পদের বৈধতা : আগেকার নবী-রাসুলদের যুগে যুদ্ধলব্ধ সম্পদ ভোগ করা মুসলমানদের জন্য বৈধ ছিল না। যুদ্ধে যেসব সম্পদ অর্জিত হতো, তা একত্রিত করা হতো এবং আসমান থেকে আগুন এসে তা ভস্ম করে দিত। এটিই ছিল যুদ্ধ কবুল হওয়ার নিদর্শন। আল্লাহ তাআলা অনুগ্রহ করে উম্মতে মুহাম্মদীর জন্য যুদ্ধলব্ধ সম্পদ বৈধ করে দিয়েছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তোমরা যে যুদ্ধলব্ধ সম্পদ লাভ করেছ, তা হালাল ও উত্তমভাবে ভোগ-ব্যবহার করো এবং আল্লাহকে ভয় করো।’ (সুরা আনফাল, আয়াত : ৬৯)

তিন. পুরো পৃথিবী নামাজের স্থান হিসেবে স্বীকৃতি : আগের উম্মতদের জন্য যেখানে-সেখানে নামাজ পড়ার অনুমতি ছিল না; নির্দিষ্ট উপাসনালয়েই নামাজ আদায় করতে হতো। তা ছাড়া মাটি থেকে পবিত্রতা অর্জনের কোনো বিধান সেকালে ছিল না। পক্ষান্তরে আল্লাহ তাআলা আমাদের জন্য পুরো পৃথিবীকে নামাজের স্থান বানিয়ে দিয়েছেন এবং যেকোনো মাটিজাতীয় বস্তু থেকে তায়াম্মুম করে পবিত্রতা অর্জন করার অনুমোদন দিয়েছেন। রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, ‘গোটা জমিন আমার জন্য নামাজ আদায় ও পবিত্রতা অর্জনের উপায় করা হয়েছে। কাজেই আমার উম্মতের যে কেউ যেখানেই নামাজের সময় হয় সেখানেই যেন নামাজ আদায় করে নেয়।’ (বুখারি, হাদিস : ৪২৫)

চার. বিধানাবলি সহজকরণ : অন্যান্য উম্মতের ওপর হারাম ছিল এমন অনেক বিষয় আমাদের জন্য হালাল করা হয়েছে। কিসাসের বিকল্প দিয়তের আইন আগে ছিল না। বনি ইসরাইলের সময় কারো গায়ে পেশাবের ছিটা লাগলে তা কাঁচি দিয়ে কেটে ফেলতে হতো। কিন্তু আল্লাহ তাআলা উম্মতে মুহাম্মদীর জন্য এসব বিষয় সহজ করেছেন। অসাধ্য কোনো বিধান ইসলামে নেই। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তিনিই তোমাদের মনোনীত করেছেন। দ্বিনের ব্যাপারে তোমাদের ওপর কোনো কঠোরতা আরোপ করেননি।’ মুআজ ইবনে জাবাল ও আবু মুসা আশআরী (রা.)-কে ইয়েমেন পাঠানোর সময় রাসুল (সা.) নসিহত করে বলেন, ‘তোমরা উভয়ে মানুষের সঙ্গে সহজ আচরণ করবে। কঠোর হবে না। সুসংবাদ শোনাবে। ঘৃণা ছড়াবে না।’ (মুসলিম, হাদিস : ১৭৩৩) 

পাঁচ. মহিমান্বিত জুমার দিনের সন্ধান লাভ : সপ্তাহের দিনগুলোর মধ্যে জুমাবার হলো শ্রেষ্ঠতম দিন। আগেকার উম্মত এই দিনের ফজিলত থেকে বঞ্চিত হয়। এ বিষয়ে রাসুল (সা.) বলেন, ‘আমরা শেষ উম্মত। তবে কিয়ামতের দিন আমরা সবার অগ্রগামী হব। কারণ আগের লোকদের কিতাব দেওয়া হয় এবং এক পবিত্র দিনে ইবাদত করা তাদের ওপর ফরজ করা হয়। কিন্তু তারা তাতে মতভেদ করে। অবশেষে আল্লাহ তাআলা আমাদের এ দিনটির সন্ধান দেন। এ ব্যাপারে সব উম্মত আমাদের অনুগামী। ইহুদিরা পরের দিন তথা শনিবার এবং খ্রিস্টানরা এর পরের দিন তথা রবিবারকে মর্যাদার দিন হিসেবে সাব্যস্ত করে।’ (মুসলিম, হাদিস : ৮৫৫)

ছয়. ভুল-ত্রুটি ও গোনাহর কল্পনাকে ক্ষমা ঘোষণা : আরেকটি বৈশিষ্ট্য হলো, মহান আল্লাহ এই উম্মতের ভুল-ত্রুটি ও গোনাহের পরিকল্পনা ক্ষমা করে দেবেন। আল্লাহ বান্দাদের দোয়া করতে শিখিয়ে দিয়ে বলেন, ‘পরওয়ারদেগার, আমরা যদি বিস্মৃত হই কিংবা ভুল করে ফেলি, তাহলে তুমি আমাদের পাকড়াও কোরো না।’ (সুরা বাকারা, আয়াত : ১৮৬)

রাসুল (সা.) বলেন, ‘আল্লাহ তাআলা আমার উম্মতের মনের অবাস্তব কল্পনা-জল্পনা ক্ষমা করে দিয়েছেন যতক্ষণ না তারা তা মুখে বলে দেয় বা বাস্তবে রূপায়িত করে।’ (মুসলিম, হাদিস : ১২৭)

সাত. সমূলে ধ্বংস হওয়া থেকে সুরক্ষা : রাসুল (সা.) বলেন, ‘আমার পালনকর্তা বলেছেন, হে মুহাম্মদ, কোনো বিষয়ে আমার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর তা আর বাতিল হয় না। আপনার উম্মতের ব্যাপারে আমি এই প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি যে তাদের আমি দুর্ভিক্ষ দিয়ে ধ্বংস করব না এবং তাদের দুনিয়া থেকে ধ্বংস করে দেয় এমন কোনো বহিরাগত শত্রু চাপিয়ে দেব না।’ (মুসলিম, হাদিস : ২৮৮৯)

আট. ভ্রষ্টতায় সবার একমত না হওয়া : রাসুল (সা.) বলেন, ‘আল্লাহ তাআলা আমার উম্মতকে (অথবা তিনি বলেন) উম্মতে মুহাম্মদীকে কখনো ভ্রষ্টতার ওপর একত্র করবেন না।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমার উম্মতের একদল লোক সব সময় সত্যের ওপর প্রতিষ্ঠিত থাকবে।’ (মুসলিম, হাদিস : ১৯২০)

নয়. পৃথিবীতে আল্লাহর আদালতের রাজসাক্ষী : এই উম্মত পৃথিবীতে আল্লাহর আদালতের রাজসাক্ষী। হাদিসে এমনটিই এসেছে। এর কারণ হিসেবে রাসুল (সা.) বলেন, ‘পৃথিবীতে তোমরা আল্লাহর সাক্ষী।’ (মুসলিম, হাদিস : ৯৪৯)

দশ. ফেরেশতাদের সঙ্গে তুলনা : এই উম্মতের নামাজের কাতারকে ফেরেশতাদের কাতারের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে। এটি এই উম্মতেরই একমাত্র বৈশিষ্ট্য। রাসুল (সা.) বলেন, ‘অন্যদের তুলনায় আমাদের তিনটি বিষয়ে শ্রেষ্ঠত্ব দেওয়া হয়েছে। (তন্মধ্যে একটি হলো) আমাদের নামাজের কাতারকে ফেরেশতাদের কাতারতুল্য সাব্যস্ত করা হয়েছে।’ (মুসলিম, হাদিস : ৫২২)

সর্বশেষ
জনপ্রিয়