ঢাকা, শনিবার   ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ||  অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৮

হালাল পথে সম্পদ বাড়ানোর আমল

ধর্ম ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:২০, ১২ আগস্ট ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

জীবন-জীবিকার অনিবার্য তাগিদে সবাই সম্পদ বৃদ্ধি করতে চায়। সম্পদ বাড়ানোর জন্য কৃষি, চাকরি ও ব্যবসাসহ মানুষ বিভিন্ন কাজ করে। সম্পদ বৃদ্ধির আশায় মানুষ পরিবার ছেড়ে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় এবং এক দেশ থেকে অন্য দেশে চলে যায়। সম্পদ বৃদ্ধির লক্ষ্যে সব দেশের সরকার, মানবাধিকার সংস্থা ও বিভিন্ন এনজিও বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে থাকে। ইসলাম এসব পদক্ষেপের যুক্তি অস্বীকার করে না। 

তবে ইসলাম এর সঙ্গে আরো কিছু অভ্যন্তরীণ উপায় সংযুক্ত করে। মূলত হালাল পথে সম্পদ বাড়ানোর বহু উপায় ইসলাম বাতলে দিয়েছে। সেগুলোর কয়েকটি আলোচনা করা হলো- 

এক. তাকওয়া অবলম্বন করা
আল্লাহ পবিত্র কোরআনে বলেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহকে ভয় করে আল্লাহ তার পথ করে দেবেন। আর তাকে তার ধারণাতীত উৎস থেকে রিজিক দান করবেন। যে ব্যক্তি আল্লাহর ওপর নির্ভর করে, তার জন্য আল্লাহই যথেষ্ট। আল্লাহ তার ইচ্ছা পূরণ করবেনই। আল্লাহ সব কিছুর জন্য স্থির করেছেন নির্দিষ্ট মাত্রা।’ (সুরা তালাক, আয়াত : ২-৩)

দুই. আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা
নুহ (আ.)-এর জবাবে পবিত্র কোরআনে এসেছে, ‘আমি বললাম, তোমাদের রবের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো, তিনি তো মহাক্ষমাশীল। তিনি তোমাদের জন্য প্রচুর বৃষ্টি বর্ষণ করবেন, তিনি তোমাদের সমৃদ্ধ করবেন ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততিতে এবং তোমাদের জন্য স্থাপন করবেন উদ্যান ও প্রবাহিত করবেন নদী-নালা।’ (সুরা নুহ, আয়াত : ১০-১২)

তিন. তাওবা ও ইস্তিগফার করা
তাওবার অর্থ হচ্ছে পাপকে ঘৃণিত কর্মজ্ঞান করে বর্জন করা। নিজ ভুলের জন্য লজ্জিত হওয়া এবং ভবিষ্যতে তা না করার দৃঢ় প্রতিজ্ঞা করা। হুদ (আ.)-এর ভাষায় কোরআনে এসেছে, ‘হে আমার জাতি, তোমরা তোমাদের রবের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো, অতঃপর তার দিকে নিবিষ্ট হও। তিনি তোমাদের ওপর প্রচুর বৃষ্টিবর্ষণ করবেন এবং তোমাদের শক্তি বর্ধিত করে দেবেন। আর তোমরা অপরাধী হয়ে মুখ ফিরিয়ে নিয়ো না।’ (সুরা হুদ, আয়াত : ৫২)

চার. আল্লাহর ওপর ভরসা করা
শুধু আল্লাহর তাওয়াক্কুল। আর মহান মালিকের ওপর আন্তরিক নির্ভরতা ও ভরসার নামই তাওয়াক্কুল। ওমর ইবনুল খাত্তাব (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘তোমরা যদি আল্লাহর ওপর যথাযথ ভরসা করো, তাহলে তোমাদের জীবিকা দেওয়া হবে সেভাবে, যেভাবে পাখি রিজিকপ্রাপ্ত হয়। পাখি সকালে ক্ষুধার্ত অবস্থায় বের হয় এবং পেট পূরণ করে সন্ধ্যায় বাসায় ফেরে।’ (তিরমিজি, হাদিস : ২৩৪৪)

পাঁচ. যথাযথভাবে আল্লাহর ইবাদত করা
ইবাদতের মাধ্যমে রিজিকে বরকত আসে। মহান আল্লাহ বলেন, ‘আর যদি তারা তাওরাত ও ইঞ্জিলের এবং যে কিতাব (কোরআন) তাদের রবের পক্ষ থেকে তাদের প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে তার যথারীতি আমলকারী হতো, তাহলে তারা ওপর (আকাশ) থেকে এবং পায়ের নিচ (জমিন) থেকে প্রাচুর্যের সঙ্গে ভক্ষণ করত। তাদের একদল তো সরল পথের পথিক; আর তাদের বেশির ভাগ এমন যে তাদের কার্যকলাপ অতি জঘন্য।’ (সুরা মায়েদা, আয়াত : ৬৬)

সর্বশেষ
জনপ্রিয়