‘ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আসর’ আইপিএলের সময় আন্তর্জাতিক ম্যাচ নয়!

খেলা ডেস্ক

সময় একাত্তর

প্রকাশিত : ১২:৫৮ পিএম, ৩ এপ্রিল ২০২১ শনিবার

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

কেভিন পিটারসেন কথাটা বলেছেন ক্রিকেট বোর্ডগুলোর প্রতি। তাদের বুঝতে হবে আইপিএল হলো ক্রিকেটের ‘সবচেয়ে বড় আসর’। তাই আইপিএলের সময় কোনো আন্তর্জাতিক সূচি না রাখাই ভালো। ক্রিকেট বোর্ডগুলোর প্রতি এ কথাই বলেছেন ইংল্যান্ডের সাবেক এ ব্যাটসম্যান।

আর মাত্র পাঁচ দিন পর শুরু হবে আইপিএলের নতুন মৌসুম। ৯ এপ্রিল মাঠে গড়াবে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও অর্থকরী এ টি-টোয়েন্টি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ। প্রায় দুই মাসব্যাপী এ টুর্নামেন্টে খেলেন বিশ্বের সেরা সব তারকা। অন্যান্য দেশের ক্রিকেট বোর্ডগুলোও ভারতের ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগকে বেশ গুরুত্ব দিয়ে থাকে। 

নিজেদের খেলোয়াড়দের আইপিএলে খেলার অনুমতি দিতে খুব একটা কার্পণ্য করে না বোর্ডগুলো। ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেট বোর্ড তো সরাসরি স্বীকার করেছে, আইপিএলে খেলার সুযোগ করে দিতে তারা নিজেদের খেলোয়াড়দের সাহায্য করে থাকে।

এবার পিটারসেনও মুখ খুললেন। তাঁর মতে, আইপিএলের সময় কোনো আন্তর্জাতিক সূচি থাকা উচিত নয়। দক্ষিণ আফ্রিকান বংশোদ্ভূত ইংলিশ ক্রিকেটারের টুইট, ‘ক্রিকেট বোর্ডগুলোর বুঝতে হবে, আইপিএল হলো (ক্রিকেটের) সবচেয়ে বড় আয়োজন। এটা চলার সময় কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজন কোরো না।’

এবারের আইপিএল নিয়ে বেশ সমস্যায় আছেন ইংল্যান্ডের ক্রিকেটাররা। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজ খেলবে ইংল্যান্ড ২ জুন থেকে। ৩০ মে শেষ হওয়ার কথা আইপিএল। 

সমস্যা হবে এউইন মরগান, বেন স্টোকস, জস বাটলাররা যেসব ফ্র্যাঞ্চাইজি দলে খেলছেন, সেগুলোর কোনোটি ফাইনালে উঠলে। সে ক্ষেত্রে আইপিএলের শেষ দিন পর্যন্ত ভারতে থাকতে হবে মরগানদের। তখন হয় আইপিএলের ফাইনাল কিংবা জাতীয় দল—এ দুটোর মধ্যে থেকে যেকোনো একটা বেছে নিতে হবে তাঁদের।

আইপিএলের ফাইনালে খেললে সে ক্ষেত্রে নিউজিল্যান্ড সিরিজে মাঠে নামা তো পরের ব্যাপার, নিউজিল্যান্ড সিরিজ শুরুর আগে ভারত থেকে ইংল্যান্ডে ফেরাই কঠিন হয়ে যাবে মরগান-স্টোকসদের জন্য। সঙ্গে যোগ করে নিন দেশে ফিরে জৈব সুরক্ষা বলয়ে ঢোকার আগে কোয়ারেন্টিনের হ্যাপা!

ইংল্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) পরিচালক অ্যাশলে জাইলস আগেই বলে রেখেছেন, আইপিএল রেখে খেলোয়াড়দের জাতীয় দলের দায়িত্ব পালনে জোর করবে না ইসিবি। এ বছর ১৪ জন ইংলিশ ক্রিকেটার খেলবেন আইপিএলে।

চেন্নাইয়ে আইপিএলের প্রথম দিনে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের মুখোমুখি হবে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। গত মার্চে ইংল্যান্ড অলরাউন্ডার স্যাম কারেন বলেছিলেন, তাঁর দল চেন্নাই সুপার কিংস প্লে অফে উঠতে না পারলে জাতীয় দলের হয়ে তাঁর খেলতে কোনো সমস্যা নেই। আইপিএলের লিগ পর্বে প্রতিটি দল চারটি ভেন্যুতে খেলবে। চেন্নাই, মুম্বাই, কলকাতা ও বেঙ্গালুরু ১০টি করে ম্যাচ আয়োজন করবে। ৮টি করে ম্যাচ আয়োজন করবে আহমেদাবাদ ও দিল্লি।

তবে সব কটি ম্যাচই হবে নিরপেক্ষ ভেন্যুতে। অর্থাৎ, যে মাঠেই খেলা হোক, কোনো ম্যাচকেই কোনো দলের ‘হোম’ ম্যাচ ধরা হবে না। অবশ্য দর্শকহীন টুর্নামেন্টে হোম ম্যাচের গুরুত্বই–বা কতটুকু থাকে! ভালোবেসে টেনে নেওয়া মানুষকে ছাড়া ‘ঘর’ তো ইট-পাথরের (পড়ুন পিচ-ঘাসের) একটা আয়তক্ষেত্র (পড়ুন বৃত্ত)। পিচ দুই দলের জন্যই একই, ঘাসও। দর্শক না থাকায় প্রাণহীন স্টেডিয়াম আবার ঘর হয় কীভাবে!